যৌন জীবনে সুখী হতে যে বিষয় গুলো আপনার জানা দরকার

আমাদের সমাজে যৌনতা কিংবা নিজের যৌন জীবন নিয়ে কথা বলার প্রবণতা এখনো গড়ে ওঠেনি। যৌনতা অস্বীকার করার মতন কোন বিষয় নয়, বরং জীবনের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার এটি। কিন্তু যেহেতু যৌন জীবন নিয়ে কথা বলার সুযোগ আমাদের সমাজে নেই, সেহেতু এই জীবনে অসুখী হলেও কাউকে বলা যায় না বা কারো পরামর্শ নেয়া যায় না। জীবনের বড় অংশে একটা তীব্র অসন্তুষ্টি নিয়ে কেটে যায় জীবন। নিজের যৌন জীবনে অসুখী আপনি? কিন্তু এ কথা কাউকে বলতে পারছেন না? তাহলে জেনে নিন কী কী করতে পারেন আপনি।
১) সমস্যাটা বুঝতে চেষ্টা করুন প্রথমেই। কেন আপনি অসুখী যৌন জীবনে? কী কারণে আর কেন কেন? সমস্যাটা কি আপনার শারীরিক? নাকি সঙ্গীকে অপছন্দ আপনার? নাকি সঙ্গী আপনার চাহিদা পূরণ করতে পাচ্ছেন না? এমন অনেকগুলো সমস্যা থাকতে পারে আপনার যৌন জীবনে অসুখী হবার পেছনে। প্রথমেই সেই কারণটা খুঁজে বের করুন।
২) সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপারটি হচ্ছে নিজের সমস্যাকে বুঝতে পারা ও স্বীকার করতে পারা। বেশিরভাগ মানুষই নিজের শারীরিক-মানসিক সমস্যাটিকে বুঝতে পারলেও সেটি স্বীকার করতে চান না। আর এই তুচ্ছ ইগো সমস্যার জন্য নিজের সমস্যাটি সমাধানও করতে পারেন না। অসুখী হবার কারণে খুঁজতে গিয়ে যদি দেখতে পান যে সমস্যা হয়তো আপনার মাঝে, তবে অবশ্যই চেষ্টা করুন বিষয়টি স্বীকার করে নিতে।
৩) যদি মনে হয় যে সমস্যাটি শারীরিক, সেটা আপনার বা সঙ্গীর যে কারোরই হতে পারে, তাহলে খুব নরম ভাবে কথা বলুন সঙ্গীর সাথে। তাঁকে বিষয়টি বুঝিয়ে বলুন যে শারীরিক সমস্যা খুবই স্বাভাবিক একটি ব্যাপার, এবং সেটা হতেই পারে। শরীরের সমস্যায় ডাক্তারের সাহায্য নেয়া মোটেও দোষের কিছু নয়। এটা তাঁকে বুঝিয়ে বলুন ও সমস্যা যারই হোক না কেন উপযুক্ত চিকিৎসা নিন।
৪) সমস্যাটি যদি এমন হয়ে থাকে যে পরস্পরকে বুঝতে পারছেন না আপনারা, ফলে পরস্পরের সাথে ঠিক মানিয়ে নিতে পারছেন না, এমন ক্ষেত্রে নিজেরা কথা বলুন আগে। লজ্জা ও সংকোচ ভুলে সঙ্গীর কাছ থেকে জেনে নিন যে তিনি কী চান। এবং তারপর তাঁকে নিজের ইচ্ছার কথাগুলোও বলুন।
আরও পড়ুনঃ গর্ভনিরোধক ছাড়া নিরাপদ সহবাসের উপায়
৫) যৌন জীবনে অসুখী হবার একটা বড় কারণ এটা হয় যে মানুষ নিজের সঙ্গীর চাওয়া-পাওয়াকে গুরুত্ব দেন না। নিজের সঙ্গীকে শারীরিক ও মানসিকভাবে তৃপ্ত রাখুন, তিনিও আপনাকে সুখী রাখতে সচেষ্ট হবেন।
৬) আপনার অসুখী হবার কারণ যদি এটা হয় যে নিজের সঙ্গীকে ভালো লাগছে না আপনার, তাহলে অবশ্য বিষয়টি বেশ গুরুতর। কেননা নিজের বিয়ে করা স্বামী বা স্ত্রীকে তো ভুলে যাওয়া বা ছেড়ে দেয়া সম্ভব না। এমন ক্ষেত্রে আপনি যা করতে পারেন সেটা হলো সঙ্গীকে ভালোবাসার চেষ্টা করুন, তাঁর ভালো দিকগুলোকে দেখার চেষ্টা করুন। যদি নিজে নিজে সম্ভব না হয়, তাহলে একজন কাউন্সিলরের সাহায্য নিন। প্রয়োজনে দুজনেই সাহায্য নিন।
৭) নিজের শরীরকে ভালবাসুন, নিজের শরীর সম্পর্কে কোন দ্বিধা বা লজ্জা রাখবেন না মনের মাঝে। জানবেন যে সকলেই নিজের নিজের মত করে সুন্দর। যৌন জীবনে সুখী হতে এটা খুবই জরুরী।
৮) একঘেয়ে যৌন জীবনে বৈচিত্র্য আনতে সঙ্গীর সাথে নতুন কিছু করে দেখার আগ্রহতা ধরে রাখুন। মাঝে মাঝে চিরচেনা রুটিনের বাইরে নতুন কিছু আপনাকে তৃপ্তি যোগাবে। কার কাছে যে কী ভালো লাগে, কোন বিষয়গুলো আপনার পছন্দের ইত্যাদি বিষয়গুলো কেবল চেষ্টা করলেই জানতে পারবেন।
একটা কথা অবশ্যই মনে রাখবেন আর সেটি হলো, সমস্যা যদি শারীরিক হয় তাহলে চিকিৎসার মাধ্যমে সেটাকে সারিয়ে তোলা সম্ভব। সমস্যা যদি মানসিক বা নিজেদের মাঝে অমিলের হয়, তাহলে সেটাও কাউন্সিলিং ও ভালোবাসা দিয়ে সমাধান করা সম্ভব। যৌনতাও একটি চর্চায় বিষয়। তাই হতাশ না হয়ে নিজের সমস্যা নিজেই সমাধান করার চেষ্টা করুন। প্রয়োজনে পেশাদার সাহায্য নিন। যৌন জীবনে সুখ খোঁজার আশায় বিপথে পা বাড়াবেন না কিংবা বহুগামী হবেন না। এতে ক্ষতি আপনার নিজেরই।

Check Also

স্বামীকে বাঁচাতে মুখ দিয়ে অক্সিজেন দেয়ার চেষ্টা, ভাইরাল ছবি

সম্প্রতি ভারতের আগরার একটি ছবি চোখে পানি এনে দিয়েছে। স্ত্রীর সব চেষ্টা ব্যর্থ করে স্বামীর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *