তানোরে বৃস্টিতে রাস্তায় কার্পেটিং

তানোর(রাজশাহী)প্রতিনিধি
রাজশাহীর  তানোরে রাস্তা সংস্কারে নিম্নমাণের বিটুমিন ব্যবহার এবং  পিচ ও পাথর পোড়াতে জ্বালানী হিসেবে পলিথিন,প্লাস্টিকের সামগ্রী এবং রাবারের স্যান্ডেল পোড়ানো হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।এদিকে এসব পোড়ানোয় গ্রামে ছড়িয়ে পড়ছে বিষাক্ত কালো ধোঁয়া দুর্গন্ধে জনজীবন বিপর্যস্থ্য হয়ে পড়েছে। এতে গ্রামবাসীর মধ্যে চরম অসন্তোষ সৃস্টি হয়েছে। অপরদিকে প্রকল্প এলাকা থেকে প্রায় ৭ কিালোমিটার দুরের গ্রাম বিনোদপুর  স্কুল মাঠে পিচ-পাথর পোড়ানো হচ্ছে। এবং গ্রামের ভাঙ্গা রাস্তা পাড়ি দিয়ে প্রায় ৭ কিলোমিটার যেতে পিচ-পাথরের টেম্পারেচার অনেকটা নস্ট হয়ে যাচ্ছে। সরেজমিন অনুসন্ধান করলেই অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যাবে,এলাকাবাসী এবিষয়ে সংশ্লিস্ট বিভাগের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, তানোরের পাঁচন্দর ইউনিয়নের (ইউপি) ইলামদহী জামতলা থেকে বানিয়াল হয়ে কৈয়লহাট পুর্বপাড়া পর্যন্ত প্রায় ৩ কিলোমিটার রাস্তা সংষ্কারে ব্যয় ধরা হয়েছে ৮৬ লাখ টাকা।রাজশাহী মহানগরীর রাজপাড়া থানা এলাকার মেসার্স তারেক ট্রেডার্সের স্ববত্তত্বাধিকারী তারেক হাসান লট্রারিতে এই কাজ পেয়ে তিনি ১৫% টাকা কমিশনে একই এলাকার রাশেল নামের এক ঠিকাদারের কাছে বিক্রি করে দিয়েছেন।
এদিকে ইলামদহী ও বানিয়াল গ্রামে ফাঁকা পড়ে থাকা জায়গা থাকার পরেও ঠিকাদার রাশেল রহস্যজনক কারণে প্রায় ৭ কিলোমিটার দুরে বিনোদপুর স্কুল মাঠে পিচ-পাথর পোড়ানোর কাজ করছে, জ্বালানী হিসেবে রাবারের জুতা-স্যান্ডল ও প্লাস্টিকের সামগ্রী ব্যবহার করা হচ্ছে। আর গ্রামের ভাঙ্গা রাস্তা পাড়ি দিয়ে ট্রলিতে করে প্রায় ৭ কিলোমিটার দুরে পাথর নেয়ার সময় টেম্পারেচার নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এতে রাস্তা সংস্কারের গুনগত মান নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গত ১৬ সেপ্টম্বর বুধবার থেকে রাস্তায়
কার্পেটিং শুরু হয়েছে, তবে বৃহস্প্রতিবার দুপুর থেকে শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত বৃস্টি হয়েছে,কিন্ত্ত বৃস্টির মধ্যেও কার্পেটিং  কাজ করা হয়েছে।এতে রাস্তার স্থায়িত্ব ও গুণগত মাণ নিয়ে এলাকাবাসীর মনে তীব্র ক্ষোভের সৃস্টি হয়েছে। এছাড়াও রাস্তার বেড নিয়েও এলাকাবাসী অসন্তোষ প্রকাশ করেছে। এনিয়ে ঠিকাদার রাশেল বলেন, এইসব রাস্তায় পাথরের ট্রাক না ঢোকায় বিনোদপুর স্কুল মাঠে চুলা ও ম্যাশিন রেখে পাথর ও পিচ পুড়িয়ে ট্রলিতে করে আনতে হচ্ছে। স্যান্ডেল পুড়ানোর বিষয়ে বলেন, স্যান্ডেল ছাড়া কি পুড়াবো কাঠ বা খড়ি পুড়ানো নিষেধ। তাই স্যান্ডেল পুড়াচ্ছি। স্যান্ডেল পুড়ানোর কারনে পরিবেশের ক্ষতি হওয়াসহ গ্রামবাসী ক্ষতিগ্রস্থ্য ও হচ্ছেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন আমার কিছুই করার নেই জানিয়ে এড়িয়ে যান। তবে বৃস্টির মধ্যে কার্পেটিং করা হয়নি বলে জানান তিনি। এবিষয়ে যোগাযোগের জন্য তানোর উপজেলা প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ আল মামুনের মোবাইলে একাধীকবার ফোন দেয়া হলে তিনি ফোন রিসিভ না করায় তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।#

Check Also

তানোর আওয়ামী লীগে তৃণমুলে আর্তনাদ

তানোর আওয়ামী লীগে তৃণমুলে আর্তনাদ আলিফ হোসেন,তানোর রাজশাহী-১ আসনের রাজনৈতিক অঙ্গনে মোস্তাক প্রেতাত্বের আর্বিভাব ঘটেছে এতে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *