মহান ব্যক্তিদের কৌতুক,আলী সাহেব ওয়েটারকে পাঁচ টাকা বকশিশ দিলেন

১। অমর কথা সাহিত্যিক শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের জন-প্রিয়তার সূর্য তখন মধ্য গগনে। একদিন তিনি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে একটি টেলিগ্রাম পাঠালেন। তখনকার দিনে অতি জরুরী এবং গুরুত্বপূর্ণ খবরগুলি টেলিগ্রামের মাধ্যমে আদান-প্রদান করা হতো। স্বভাবতই টেলিগ্রাম হাতে পেয়ে রবিবাবু বেশ উদ্বিগ্ন হলেন,কিন্তু পড়ে দেখেন, লিখা আছে,”আমি ভাল আছি গুরুদেব।” রবীন্দ্রনাথ শরৎ বাবুর কৌতুকটি বুঝলেন এবং বেশ উপভোগ করলেন।
কয়েকদিন পর শরৎ বাবু পেলেন খুব সুন্দর প্যাকেটে মোড়ানো একটি পার্সেল । প্যাকেটটি ছিল ওজনে বেশ ভারী এবং প্রেরক ছিলেন, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। শরৎবাবু খুব খুশী মনে প্যাকেট খুলে দেখলেন ভিতরে বেশ বড় একটি পাথরের টুকরা, সাথে একটি চিরকুট। তাতে লিখা ছিল,”তোমার কুশল সংবাদ পাইয়া হৃদয় হইতে এই পাষাণভার নামিয়া গেল।”
২। সুসাহিত্যিক, সুরসিক, সুপণ্ডিত, বহু ভাষাবিদ সৈয়দ মুসতবা আলী তখন দিল্লীর শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে কাজ করেন। একদিন তিনি তাঁর এক বন্ধুসহ ঢুকলেন এক অভিজাত রেস্টুরেন্টে। উভয়ের পরনে ছিল সাধারণ পোষাক,যা ঐ রেস্টুরেন্টের জন্য মানানসই ছিল না। খবারও খেলেন অল্প এবং অপেক্ষাকৃত সাধারণ মানের। তাই পরিবেশনকারী ওয়েটারের চোখে-মুখে ছিল একটা তাচ্ছিল্য ভাব। বিল পরিশোধ করে চলে আসার সময় আলী সাহেব তাকে দিলেন পাঁচ টাকা বকশিশ।ঐ সময়ে সাধারণতঃ কেউ ওয়েটারকে দুই-এক টাকার বেশী বকশিশ দিত না। তাই ওয়েটার বিষ্মিতভাবে টাকাটা নিল।
পরদিন আলী সাহেব ঐ বন্ধুটি সহ আবার ঢুকলেন ঐ রেস্টুরেন্টে, পরনে বেশ পরিপাটি পোষাক। আগের দিনের ওয়েটারটি দৌড়ে এসে খুব যত্ন ও সম্মানের সাথে খাবার পরিবেশন করল।এইদিন আলী সাহেবরাও খেলেন উন্নত মানের খাবার। বিল পরিশোধ করে চলে আসার সময় আলী সাহেব কোটের পকেট থেকে অনেক খোঁজা-খোঁজি করে একটি সিকি বের করে সামনে দাঁড়ানো ওয়েটারটিকে দিলেন। ওয়েটার বিষন্নমনে সিকিটি হাতে নিয়ে নাড়াচাড়া করতে লাগল। আলী সেহব তখন ওয়েটারকে বললেন,”আজকের সিকিটা গতকালের জন্য, আর গতকালের পাঁচ টাকা আজকের জন্য।”
কপি

Check Also

হৃদয়বিদারক একটি অ’সাধারণ ভালো’বাসার গল্প,কেউ মিস করবেন না

হৃদয়বিদারক একটি অসাধারণ ভালোবাসার গল্প,কেউ মিস করবেন না!একটা ছে’লে একটা মেয়েকে খুব ভালোবাসতো! একদিন মেয়েটা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *