রাতে মুম্বাই-চেন্নাই ‘সুপার ক্লাসিকো’ দিয়ে শুরু আইপিএল

দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর অবশেষে শুরু হচ্ছে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) এর ১৩তম আসর। শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) রাতে আবুধাবির শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে উদ্বোধনী ম্যাচে মুখোমুখি হবে গতবারের চ্যাম্পিয়ন মুম্বাই ইন্ডিয়ানস ও রানার্সআপ চেন্নাই সুপার কিংস।

আইপিএলের ইতিহাসের সবচেয়ে সফল দুই দলের এই লড়াইকে ‘সুপার ক্লাসিকো’ বললে একেবারেই ভুল হয় না। শক্তি আর সাফল্যের তুল্যমূল্যের বিচারে কোনো দলই কম যায় না। তাই দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর ক্রিকেটপ্রেমীরা যে একটা উপভোগ্য ম্যাচ উপভোগ করতে চলেছেন, সেটা আগে থেকেই বলে দেওয়া যায়।

করোনার সংক্রমণ থেকে বাঁচতে এবারে অনেক কিছুই বদলে যাচ্ছে। স্টেডিয়ামে দর্শক তো ঢুকতে পারবেনই না, সংবাদমাধ্যমেরও ঢোকার অনুমতি নেয়। শুধু ম্যাচ শেষের পর একটা সাংবাদিক বৈঠক করবেন দুই দলের প্রতিনিধিরা। এই প্রথমবার আইপিএলে আলাদা করে কোনো উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হচ্ছে না।

স্টেডিয়ামে থাকছেন না চিয়ারলিডাররাও। মোট কথা এবারের আইপিএলে অক্রিকেটীয় কোনো আকর্ষণই তেমন থাকছে না।

আবু ধাবির আবহাওয়া বলছে, আজ সেখানে বৃষ্টির কোনো সম্ভাবনা নেই। তাপমাত্রা থাকতে পারে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের আশেপাশে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, স্টেডিয়ামে রানের বর্ষণ হওয়ার সম্ভাবনাও কম। কারণ, এখানকার পিচে টার্ন আছে। আবার মাঝে মাঝে বল নেমে যাওয়ার সম্ভাবনাও থাকছে। সেই সঙ্গে বড় বাউন্ডারি। স্বাভাবিকভাবেই কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হবে ব্যাটসম্যানদের।

এই ম্যাচের আগে পরিসংখ্যান চিন্তায় রাখবে দুই দলকেই। কারণ, ২০১৪ আইপিএলে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স আমিশাহীতে যে কয়টা ম্যাচ খেলেছে, সবকটাতেই কপালে জুটেছে হার। আবার চেন্নাই শেষ পাঁচটি ম্যাচে মুম্বাইকে একবারো হারাতে পারেনি। দু’দলের মধ্যেকার শেষ ১০টি ম্যাচের মধ্যে ৮ টিতেই হেরেছে সিএসকে। তবে সেসব ভুলে নতুন মৌশুমে নতুনভাবে শুরু করতে চাইবে দুই দলই।

সম্ভাব্য মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স একাদশ

কুইন্টন ডি কক, রোহিত শর্মা, সূর্যকুমার যাদব, ঈশান কিষাণ, কাইরন পোলার্ড, হার্দিক পাণ্ডিয়া, ক্রুণাল পাণ্ডিয়া, নাথান কুল্টার নাইল/মিচেল ম্যাকক্লানাঘান, ট্রেন্ট বোল্ট, জশপ্রীত বুমরাহ, রাহুল চাহার

সম্ভাব্য চেন্নাই সুপার কিংস একাদশ

শেন ওয়াটসন, ফ্যাফ ডু’প্লেসিস, আম্বাতি রায়ডু, এম এস ধোনি, কেদার যাদব, ডোয়েন ব্রাভো, রবীন্দ্র জাদেজা, পীযূষ চাওলা, শার্দূল ঠাকুর, দীপক চাহার, ইমরান তাহির/ লুঙ্গি এনগিডি

Check Also

দেশে ৩ কোটি ৫৮ লাখ ৩৪ হাজার ১১৫ ডোজ টিকার প্রয়োগ

প্রতিবেদক: দেশে এ পর্যন্ত ৩ কোটি ৫৮ লাখ ৩৪ হাজার ১১৫ ডোজ করোনা টিকার প্রয়োগ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *