সাঁথিয়া খাদ্য গুদাম অফিস সময় বাড়িয়েও পূরণ হলো না ধান-চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা

মনসুর আলম খোকন,সাঁথিয়া(পাবনা) প্রতিনিধি:
পাবনার সাঁথিয়ায় ১৫ দিন সময় বাড়িয়েও অর্জিত হয়নি ধানÑচাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা। সরকারের বেধে দেয়া দামের চেয়ে বাজার মূল্য বেশি হওয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে জানিয়েছেন সাঁথিয়া উপজেলা খাদ্য অধিদপ্তর। অপরদিকে একই অবস্থার কথা জানালেন মিল মালিকেরা। তারা সরকারের বেধে দেয়া দামে চাল সরবরাহ করতে পারছেন না। এমনিতেই করোনা ও বন্যার কারণে ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে মিল মালিকেরা। এর উপর লোকসান দিয়ে চাল সরবরাহ করতে চাচ্ছেন না তারা। সরকারের পক্ষ থেকে যদি বাজার দর হিসাব করে মূল্য নির্ধারণ করা হতো, তবে এ অবস্থার সৃষ্টি হতো না বলে মনে করছেন সরকারের সাথে চুক্তিবদ্ধ মিল মালিকেরা।
উপজেলা খাদ্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, এ বছর উপজেলায় ৭শ’৩৯ মে.টন ধান সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে ৬শ’ ৫০ জন কৃষককে ২৬ টাকা দরে ধান বিক্রির জন্য লটারির মাধ্যমে নির্বাচিত করা হয়। অপরদিকে ৭ শ’ ১৩ মে.টন চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে ৩৩ জন মিল মালিক ৩৬ টাকা দরে চাল বিক্রির চুক্তি করেন। গত এপ্রিলে সংগ্রহ শুরু হয়ে ৩১আগষ্ট পর্যন্ত সময় নির্ধারণ ছিল। এ সময়ের মধ্যে আশানুরুপ ধান,চাল সংগ্রহ না হওয়ায় সময়সীমা ১৫ দিন বাড়িয়ে ১৫ সেপ্টম্বর পর্যন্ত করে খাদ্য মন্ত্রণালয়। গেল মঙ্গলবার এই সময় শেষ হয়েছে। মঙ্গলবার ছিল সময়মীমার শেষ দিন। মঙ্গলবার পর্যন্ত ধান সংগ্রহ হয়েছে ৩৭.২০০মে.টন। অপরদিকে চাল সংগ্রহ হয়েছে মাত্র ৩২৫ মে.টন।
ধান সরবরাহকারী কৃষকেরা জানান, হাট-বাজারে প্রতিমণ ধান বিক্রি হচ্ছে ১০৫০ থেকে ১১শ’ টাকা পর্যন্ত। সেক্ষেত্রে সরকার মূল্য নির্ধারণ করেছেন ১ হাজার ৪০ টাকা। তাছাড়া আরও খরচ আছে। টাকা পেতেও ধরণা দিতে হয়। এর চাইতে কোন ঝামেলা ছাড়া হাটÑবাজারে বিক্রি করা সহজ ও দাম বেশী।
মিল মালিক শহীদ বলেন, বাজারে প্রতি মণ চাল বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার ৭ শ’ থেকে ১ হাজার ৮শ’ পর্যন্ত। সরকারি মূল্য নির্ধারণ করেছে ১ হাজার ৪ শ’ ৪০ টাকা। এই দরে যদি আমরা চাল সরবরাহ করি তবে প্রতি কেজি চালে ৭/৮ টাকা করে লোকসান হয়। লোকসান দিয়ে তো আর চাল দিতে পারি না।
ধান ও বোরো চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ না হওয়া প্রসঙ্গে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা নুর মোহাম্মদ বলেন, যাদের ধান চাল দেয়ার কথা ছিল তারা না দেয়ায় এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। তিনি কৃষক ও মিল মালিকের বরাত দিয়ে বলেন, তারা বলছেন সরকারি দাম থেকে বাজার দর একটু বেশি হওয়ায় তারা সরবরাহ করতে পারছে না। অনেক চেষ্টা করে কিছুটা সংগ্রহের চেষ্টা করেছি।

Check Also

আজ ঢাকা-১৮ ও সিরাজগঞ্জ-১ আসনে ভোট

করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে ঢাকা-১৮ ও সিরাজগঞ্জ-১ আসনের উপনির্বাচন আজ। যথেষ্ট নিরাপত্তা ব্যবস্থা, স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *