বদরগঞ্জে দোকানের বকেয়া টাকা চাওয়ায় পুলিশের হামলা ও দোকান ভাংচুর

স্টাফ রিপোটার।। পুলিশের কাছে বকেয়া টাকা চাওয়ায় দোকানে হামলা ভাংচুর ও ব্যবসায়ীকে মারপিটের অভিযোহ উটেছে। রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার রামনাথপুর টেক্সসেরহাটে কমল সরকারের মেডিসিনের দোকানে ওই এঘটনা ঘটে। এঘটনায ব্যবসায়ী বাদী হয়ে ওই পুলিশের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দিয়েছে।
গতকাল দুপুরে সরেজমিনে গেলে হামলার শিকার টেক্সসেরহাটের মেডিসিন ব্যবসায়ী কমল সরকার জানান,উপজেলার রামনাথপুর বটপাড়া গ্রামের আলম মিয়ার ছেলে আশিক রানা নীলফামারী জেলার কিশোরগঞ্জ থানায় কনস্টেবল পদে চাকুরী করে। কিশোরগঞ্জ থানা কাছাকাছি হওয়ায় প্রায়দিন সে বাড়িতে আসতো এবং পাশের টেক্সেরহাটে পুলিশি দাপড় দেখিয়ে বিভিন্ন ব্যবসায়ীর কাছ থেকে বাকি খরচ করতো। বাকেয়া টাকা চাইতে গেলে আশিক রানা ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন মামলায় ফাসানোর ভয় দেখাতো।তার ভয়ে ব্যবসায়ীরা আতংকিত।
এরপরেও আমি আমার শ্রেয়া মেডিসিনের দোকানের বকেযা টাকার জন্য চাপ দিলে সে উল্টো আমার উপর হামলা চালায় এবং দোকান ভাংচুরসহ আমাকে মারপিট করে। আমি নিরুপায় হয়ে সঠিক বিচারের আশায় বদরগঞ্জ থানায় তার নামে অভিযোগ করেছি।
টেক্সসেরহাটের একাধিক ব্যবসায়ী ও তার গ্রামের লোকজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, পুলিশ সদস্য আশিক রানা ওরফে বাদশা নিজেও নেশা করে এবং নেশার ব্যবসার সাথে জড়িত। তাকে কিছু বললেই সে মামলার ভয় দেখায়। সে জোর করে জমি দখল করে বাড়ি করেছে যার মামলা এখনও চলছে কিন্ত জমির মালিক গরীব হওয়ার সে এখনও বাড়ির দখল ছাড়েনি। এছাড়াও তার কর্মস্থল কিশোরগঞ্জ থানা কাছাকাছি হওয়ায় সে প্রতিদিন বাড়িতে আসে আর এলাকায় পুলিশি দাপট দেখায়।
তারা আরও জানান এই মুহুর্তে আশিক রানাকে থামানো না গেলে সে এলাকায় মাদকের ব্যপকতা আরো বাড়িয়ে দিবে। তাতে করে আরো ক্ষতির মুখে পড়বে এই এলাকার যুব সমাজ। কারন গত মাসে মাদকসেবী উটতি বয়সি কিছু ছেলে একটি মেয়েকে উঠিয়ে নিয়ে সারারাত আটক রেখে ধর্ষন করে। ছেলেগুলো আশিক রানার প্রতিবেশি হওয়ায় সে কৌশলে মাদকসেবী উটতি বয়সি ছেলেগুলো বাচিয়ে নেয়। এমন অনেক অনৈতিক কর্মকান্ডসহ মাদক সেবন ও মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত তারা অভিযোগ করে বলেন।
এবিষয়ে আশিক রানা ওরফে বাদশার মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি সব অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, আমি কমলের উপর রাগ করে ওর দোকানে দু একটি ওষুধ ফেলে দিয়েছি এতে যদি সাংবাদিক নিউজ করে তাতে আমার কি আর হবে কিছুই হবে না সাংবাদিকদের যা করার আছে করেন বলে ফোন কেটে দেয়।
এব্যপারে রামনাথপুর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, আশিক রানা ওরফে বাদশা পুলিশের বিরুদ্ধ নানান কথা শুনি তবে কেউ কোনদিন লিখিত ভাবে তার বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ পরিষদে দেয়নি। এবিষয়ে বদরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান হাওলাদার জানান, পুলিশ সদস্য আশিক রানার বিরুদ্ধে অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত করে সত্যতা পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Check Also

লক্ষ্মীপুরে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দালালের কাছে জিম্মি রোগীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক : দালালের দৌরাত্ম‌্যে নাজেহাল লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের রোগী ও স্বজনরা। ভুক্তভোগীদের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *