গাইবান্ধায় লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি

গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি: চারিদিকে থৈ থৈ করছে বন্যার পানি। যেন পানিতে ভাসছে গাইবান্ধার মানুষ। গত ২৪ ঘণ্টা জেলার সবগুলো নদ-নদীর পানি অস্বাভবিকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি চরম অবনতির দিকে যাচ্ছে। গাইবান্ধা পানি উন্নয়ন বোর্ডের কন্ট্রোলরুম থেকে জানা যায় ২ অক্টোবর শুক্রবার দুপুর ১২ টায় করতোয়া নদীর পানি ১১৬ সেন্টিমিটার, ঘাঘট নদীর পানি ২৬ সেন্টিমিটার ও ব্রহ্মপুত্রের পানি ৫ সেন্টিমিটার বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তবে তিস্তার পানি ৬৪ সেন্টিমিটার নিচে রয়েছে। বন্যায় নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। এতে প্রায় লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। অস্বাভাকিভাবে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় সহস্রাধিক ঘরবাড়ি ও রোপা আমন ধানসহ অন্যান্য ফসল পানিতে তুলিয়ে গেছে। গোবিন্দগঞ্জ ও পলাশবাড়ী উপজেলায় বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙ্গে গেছে। বিদ্যুৎ ও যোগাযোগা ব্যবস্থার বিপর্যস্ত ঘটেছে। ভেসে গেছে শতশত হেক্টর পুকুরের মাছ। অসহায় মানুষগুলো বিভিন্ন বাঁধ ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আশ্রয় নিয়েছে। এসব মানুষের মধ্যে খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানির সংকট দেখা দিয়েছে। গবাদি পশু-পাখি নিয়ে বিপাকে পড়েছে বানভাসি মানুষ। সাদুল­াপুর উপজেলার রসুলপুর, মহিষবান্দি, ছান্দিয়াপুর, শালাইপুর ও গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার দরবস্ত, ফুলবাড়ি, তালুক কানপুর, সাপমারা, নাকাই হরিরামপুর এবং পলাশবাড়ী উপজেলার কাশিয়াবাড়ী, পশ্চিম মির্জাপুর, কিশোরগাড়ী গ্রামসহ প্রায় ১৫০ গ্রামের মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। গাইবান্ধা জেলা প্রশাসক মো. আবদুল মতিন বলেন, পানিবন্দি মানুষের জন্য আশ্রয় কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। এ দুর্যোগ মোকাবিলায় ত্রাণ বিতরণসহ নানা ধরণের সহায়তা করা হচ্ছে।

Check Also

লক্ষ্মীপুরে কঠোরভাবে পালিত হচ্ছে ‘লকডাউন’

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনাভাইরাসের সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি ঠেকাতে নতুন করে শুরু হওয়া লকডাউনের প্রথম দিন লক্ষ্মীপুরে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *