বিশ্বের সবচেয়ে প্রত্যন্ত দ্বীপ ত্রিস্তান ডি কুনহা

ঢাকা : পৃথিবীর প্রত্যন্ত একটি এলাকা ত্রিস্তান ডি কুনহা। এটি একটি দ্বীপ। স্থানীয়দের কাছে যা সংক্ষেপে টিডিসি নামে পরিচিত। সেখানে যাওয়া খুবই কঠিন একটি কাজ।

বিবিসি বাংলা এ নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে। প্রতিবেদনে বলা হয়, দ্বীপটি কেমন এবং সেখানে কারা কীভাবে থাকে তা দেখতে সেখানে যেতে চাইলে আপনাকে প্রথমে বিমানে করে দক্ষিণ আফ্রিকার কেপটাউনে যেতে হবে। সেখান থেকে উঠতে হবে একটি নৌকায়। পরে ১৮ দিন ধরে আপনাকে পাড়ি দিতে হবে উত্তাল সমুদ্র। পৃথিবীর সবচেয়ে বিপদসংকুল সমুদ্রপথের একটি এই পথ। তার পর কোনো এক সময় কুয়াশা উঠে গেলে আপনি এই দ্বীপটির দেখা পেতে পারেন। নৌকা নিয়ে টিডিসি দ্বীপের দিকে অগ্রসর হবেন। নৌকাটি কূলে ভেড়ানোর জন্য আপনাকে অপেক্ষা করতে হবে কখন বাতাসের গতি একটু দুর্বল হয়ে আসে তার জন্য। নৌকাটি ডাঙায় তুলে রাখতে হবে। তা নাহলে সমুদ্রের ঢেউ এটিকে দূরে কোথাও ভাসিয়ে নিতে পারে। অথবা ঢেউ-এর আঘাতে পাথরের সঙ্গে সংঘর্ষে নৌকা ভেঙে যাওয়ার আশংকা আছে। এর পরই আপনি দেখা পাবেন ত্রিস্তান ডি কুনহার রাজধানী সেভেন সিজের এডিনবরা এলাকা, যেখানে লোকজনের বসতি।

অবশ্য আপনি দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে দ্রুতগতির নৌকাও নিতে পারেন। সুবিধা হচ্ছে এই নৌকায় সমুদ্রপথে ২,৮১০ কিলোমিটার পাড়ি দিতে সময় লাগবে মাত্র ছয় দিন। কিন্তু এর নেতিবাচক দিকও আছে আর তা হচ্ছে এই নৌকাটি বছরে মাত্র একবার ছাড়ে। এর যাত্রী সংখ্যাও সীমিত।

এছাড়া এই পথে মাছ ধরার যে সামান্য কয়েকটি জাহাজ চলাচল করে সেগুলোর কাছেও আপনি লিফট চাইতে পারেন। ত্রিস্তান ডি কুনহাতে যাওয়া অথবা সেখান থেকে ফিরে আসা ঠিক এতোটাই কঠিন।

কারা থাকে সেখানে : সর্বশেষ জরিপ অনুসারে ত্রিস্তান ডি কুনহা দ্বীপে মোট অধিবাসীর সংখ্যা ২৪৫। তাদের মধ্যে ১৩৩ জন নারী এবং ১১২ জন পুরুষ। তারা সবাই সেভেন সিজের এডিনবরায় বসবাস করেন।

সেখানে আছে একটি কফি শপ, সামাজিক অনুষ্ঠান আয়োজনের জন্য একটি হল, একটি পোস্ট অফিস এবং একটি পাব। পাবটির নাম অ্যালবেট্রোস। দ্বীপটি আকারে ছোট্ট হলেও সেখানে একটি আধুনিক হাসপাতাল আছে, আছে তার চেয়েও ছোট এক স্কুল।

ত্রিস্তান ডি কুনহা এমন একটি জায়গা যেখানে হয়তো বিয়ের বহু আগেই আপনার স্বামী বা স্ত্রীর সঙ্গে দেখা হয়ে যাবে। আর আপনি যদি ত্রিস্তানিয়ান বা এখানকার আদি বাসিন্দাদের উত্তরসূরী হন তাহলে আপনার নামের সঙ্গে ছয়টি পদবীর যেকোনো একটি থাকতে পারে।

অধিবাসীদের মধ্যে মাত্র দুজন আছেন যারা এই দ্বীপে জন্মগ্রহণ করেননি। তাদের একজন পুরুষ, আরেকজন নারী। কয়েক বছর আগে তারা দুজনেই দ্বীপের বাসিন্দাদের বিয়ে করে প্রত্যন্ত এই দ্বীপটিতে তাদের পরিবারের সঙ্গে থেকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

এখানে একজন ডাক্তার এবং একজন শিক্ষকও আছেন যাদের ব্রিটেন থেকে সেখানে পোস্টিং দেওয়া হয়েছে। এই দ্বীপটি ব্রিটেনের বাইরে ব্রিটিশ-শাসনাধীন এলাকা বা ব্রিটিশ ওভারসিজ টেরিটরি।

দ্বীপের বিনোদন : দ্বীপটির উপকূলজুড়ে তিন কিলোমিটার দীর্ঘ একটি রাস্তাও আছে। এই সড়ক ধরে খোলা একটি জায়গায় যাওয়া যায়। সেখানে জমির পর জমি। এর চারপাশে পাথরের প্রাচীর দিয়ে ঘেরা। তীব্র বাতাস থেকে লোকজনকে রক্ষা করতে এসব প্রাচীর তৈরি করা হয়েছে।

সেখানে চাইলে আপনি কিছু সবজি চাষ করতে পারেন। দ্বীপের লোকজনের কাছে বারবিকিউ বা ব্রাই সবচেয়ে প্রিয় বিনোদন। আগুনে মাংস ঝলসে খাওয়াকে ব্রাই বলা হয় যা ত্রিস্তান ডি কুনহার সবচেয়ে নিকটতম প্রতিবেশী দক্ষিণ আফ্রিকার সংস্কৃতি থেকে এসেছে।

দ্বীপের জীবন রোমান্টিক? : ত্রিস্তান ডি কুনহাকে অনেকেই শুধু ত্রিস্তান নামেই চেনে। একগুচ্ছ আগ্নেয় দ্বীপপুঞ্জের মধ্যে এটিই মূল দ্বীপ। এসব দ্বীপের মধ্যে একটির নাম নাইটিঙ্গেল আইল্যান্ডস যেখানে ত্রিস্তানিয়ানরা কখনো-সখনো ছুটি কাটাতে যায়। সেখানে তীব্র স্রোতের বিরুদ্ধে হাঙরের পাশাপাশি সাঁতার কাটা অপেক্ষাকৃত কম ঝুঁকিপূর্ণ।

নীরব দ্বীপমালা : বাতাসের শীস এবং গরুর ডাক ছাড়া এই দ্বীপে তেমন বেশি কিছু শোনা যায় না। তবে দ্বীপপুঞ্জের যেখানেই যাবেন সেখানেই আপনি প্রচুর পাখি দেখতে পাবেন। তবে তাদের কাউকে গান গাইতে শোনা যায় না।

এসব পাখি শিকার করার মতো পাখিও খুব একটা নেই এই দ্বীপগুলোতে। ফলে কিছু পাখি আছে যারা উড়াল না দিয়েও বেঁচে থাকতে পারে। এরকম একটি বিরল প্রজাতির পাখি ইনঅ্যাকসিসেবল আইল্যান্ড রেল।

ফলমূল নেই, আছে লবস্টার : পৃথিবীর সবচেয়ে প্রত্যন্ত দ্বীপে বসবাস করলে সেখানকার ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্য থেকে নিজেকে বিচ্ছিন্ন করে রাখা খুব কঠিন। আবার এলাকাটি দুর্গম হওয়ার কারণে সারাবিশ্ব থেকে নিজেকে বিচ্ছিন্ন করে রাখাও খুব সহজ।

‘এই দ্বীপে কোভিড-নাইনটিনের সংক্রমণ হয়নি ঠিকই কিন্তু তার অর্থ এই নয় যে আমরা এই মহামারীতে ক্ষতিগ্রস্ত হইনি,’ বলেন দ্বীপের একজন বাসিন্দা ফিওনা কিলপাট্রিক।

প্রথম শিশুর জন্ম : কোভিড মহামারীর আরেকটি দিক হচ্ছে এর ফলে ত্রিস্তান ডি কুনহা দ্বীপে গত কয়েক বছরের মধ্যে এই প্রথম সেখানে একটি শিশুর জন্ম হয়েছে।

একজন জানান, জটিলতা এড়াতে সন্তান জন্ম দেওয়ার জন্য নারীরা সাধারণত দক্ষিণ আফ্রিকাতে চলে যায়। কিন্তু সেদেশে লকডাউন জারি করার কারণে সবধরনের যোগাযোগ বন্ধ রাখা হয়েছে। একারণে ত্রিস্তানেই ওই শিশুটির জন্ম হয়েছে।

লোকজন অষ্টাদশ শতাব্দীর শুরুর দিকে ত্রিস্তান দ্বীপপুঞ্জে গিয়ে সেখানে বসতি গড়ে তুলতে শুরু করে। তার পর থেকে সেখানে জনসংখ্যা কখনো কমেছে, কখনো বেড়েছে। তবে গত কয়েক দশকে তাদের সংখ্যা কমতির দিকে।

Check Also

গতকাল সকালে তৃতীয় সন্তানের বাবা হলেন সাকিব আল হাসান

সুখবর দিলেন দেশসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তৃতীয় সন্তানের বাবা হলেন তিনি। এবার সাকিব-শিশির ঘর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *