শেওড়াপাড়ায় দেয়াল খুঁড়তেই বেরিয়ে এলো কঙ্কাল

ঢাকার মিরপুরের পশ্চিম শেওড়াপাড়ার ৩৮৯ নম্বর বাড়ি। পাঁচ তলার এই বাড়িতে অন্তত অর্ধশত মানুষ বসবাস করেন। তারা কেউই জানতেন না যে তাদের সঙ্গে এক কঙ্কালের বসবাস! হঠাৎ পানির সমস্যার সমাধান করতেই বেরিয়ে এলো নরকঙ্কাল! যা দেখে দেখে রীতিমতো ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পড়েন ওই মিস্ত্রি ও বাড়ির বাসিন্দারা। বাড়ির ভেতর এত বড় রহস্য জিইয়ে থাকার পরও সবার সব কর্মকাণ্ড যেন স্বাভাবিক ছিল। খুবই স্বাভাবিক জীবনযাপন করছেন সবাই। কিন্তু যখনই দেয়াল খুঁড়ে বেরিয়ে এলো কঙ্কাল, তখনই এক ভূতুড়ে আবহ তৈরি হলো। পুরো বাড়ির বাসিন্দাদের যেন হাত নেড়ে যেন কঙ্কালটি বলছে, ‘ওরা আমাকে হত্যা করেছে!’

ওই বাড়ির অনেকেরই রাতে ঘুম হচ্ছে না! ঘুম আসলেও হঠাৎ আঁতকে উঠছেন আর ভাবছেন, দেয়ালের ভেতর থেকে কেউ তাদের ডাকছেন! আবার কেউ কেউ ভাবছেন, পুরো বাড়িতেই আহাজারি করে বেড়াচ্ছে এই কঙ্কাল! তবে এলাকাবাসীর মনে একটাই প্রশ্ন, আসলে কী ঘটেছিল? কোন হতভাগ্যের কঙ্কাল এটি?

সব প্রশ্নের উত্তর খুঁজছে পুলিশ। গত ১৭ সেপ্টেম্বর ওই কঙ্কাল উদ্ধার করা হয়। তবে খবরটি গোপনই ছিল। ওই দিনই মামলা হয় মিরপুর থানায়। পরে মামলার তদন্ত সংস্থা ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মিরপুর বিভাগ সিআইডি, সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগসহ একাধিক সংস্থায় চিঠি দিয়েছে।

পুলিশ চিঠিতে জানতে চেয়েছে- এটি পুরুষ নাকি নারীর কঙ্কাল? কত দিন আগের ঘটনা? এখন পর্যন্ত ফরেনসিক বিভাগ তাদের প্রাথমিক মতামতে জানিয়েছে, কঙ্কালটি একজন নারীর। কারণ, কঙ্কালের পাশে পাঁচ-ছয় ইঞ্চি লম্বা চুল পাওয়া গেছে। আর এমন চাঞ্চল্যকর হত্যাকাণ্ডের সময়কাল সম্পর্কে ধারণা পেতে ডিএনএ প্রতিবেদন হাতে পাওয়ার অপেক্ষা করছে তদন্ত সংস্থা। এদিকে, পুলিশ হন্যে হয়ে খুঁজছে এই কঙ্কালের পেছনের রহস্য কাহিনি।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মিরপুর থানার উপপরিদর্শক শফিকুল ইসলাম জানান, ফ্ল্যাটের পশ্চিম-দক্ষিণ কোণে স্টোররুমের ওপর ফলস ছাদের দেয়ালের ভেতরে এই কঙ্কালের সন্ধান পাওয়া গেছে। লাশটি লুকিয়ে রাখতে অনেক কৌশল অবলম্বন করা হয়েছে।

২০ বছর ধরে বসবাসকারী ভাড়াটিয়া সাবেক সরকারি কর্মচারী আদম আলী বলেন, ভাড়াটিয়া হিসেবে এখানে থাকতাম। এ ঘটনা শুনে আমরাও চমকে উঠেছিলাম।

বাড়িটির মালিক ও ফার্নিচার ব্যবসায়ী আবদুল হালিম সরকার বলেন, কীভাবে বাসার ভেতরে কঙ্কাল এলো, সেই হিসাব আমরাও মেলাতে পারছি না। এক সময় ওই বাড়ির ভাড়ার বিষয়টি দেখভাল করতেন আমার স্ত্রী। বর্তমানে আমার মেয়ে দেখাশোনা করছেন। ফ্ল্যাটের বাসিন্দাদের পানির সমস্যা দূর করতে গিয়ে মিস্ত্রি ডাকা হয়। তিনি কঙ্কাল পেয়েছেন। আমরা চাই, এর সুষ্ঠু তদন্ত হোক। মূল রহস্য বেরিয়ে আসুক।

বাড়ির মালিক আরো বলেন, জঙ্গিরা যখন বেশি তৎপর হয়েছিল, তখন থেকে ভাড়াটিয়াদের তথ্য রাখার দিকে বেশি মনোযোগী হই। এর আগে তো অনেক সময় সেভাবে ভাড়াটিয়ার তথ্য রাখাও হতো না।

Check Also

করোনায় দেশে আরো ২৩৯ মৃত্যু, শনাক্ত ১৫২৭১

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরও ২৩৯ জন। তাদের নিয়ে সরকারি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *