ফের মালয়েশিয়ার ভিপি হলেন বাংলাদেশের বশির!

দ্বিতীয়বারের মতো মালয়েশিয়ার মাসা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিপি নির্বাচিত হলেন বাংলাদেশি শিক্ষার্থী হাফেজ বশির ইবনে জাফর।তিনি জামালপুর জেলার জামেউল উলুম হাক্কানিয়া দাওরায়ে হাদিস মাদ্রাসার মুতামিম মাওলানা জাফর আহমদ কাসেমীর ছেলে। দেশটির অন্যতম বৃহৎ বিশ্ববিদ্যালয় মাসা ইউনিভার্সিটির ছাত্র সংসদ তথা ‘স্টুডেন্ট রিপ্রেজেন্টিটিভ কাউন্সিল’ (এসআরসি) নির্বাচনে ভাইস প্রেসিডেন্ট (ভিপি) পদে আবারও জয়লাভ করলেন বাংলাদেশি এ তরুণ।

২০২১ শিক্ষাবর্ষের ছাত্রসংসদ নির্বাচনে সাত প্রতিদ্বন্দ্বীকে হারিয়ে ৮১৩ ভোটে জয়ী হয়েছেন বশির ইবনে জাফর। মোট ভোটার সংখ্যা ১৭৯২। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী পেয়েছেন ৪০৭ ভোট। এছাড়াও বশির ইবনে জাফরের প্যানেলের ৬ জনের মধ্যে ৫ জনই বিজয়ী হয়েছেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষার্থীদের নিয়ে গত ১ ডিসেম্বর থেকে শুরু হওয়া নির্বাচনের প্রথম ও দ্বিতীয় দফা ভোট শেষে সোমবার স্থানীয় সময় বেলা আড়াইটায় ইলেকটোরাল কমিটি কর্তৃক এ ফলাফল প্রকাশিত হয়। এর আগে গত ২৩ ডিসেম্বর ফলাফল প্রকাশ করার কথা থাকলেও সিনেটের অনুমদন না পাওয়ায় ইলেকটোরাল কমিটি তা প্রকাশের জন্য নতুন দিন ধার্য করে।

গত বছর এ নির্বাচনে আটজন প্রতিদ্বন্দ্বীকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশি বশির এই বিশ্ববিদ্যালয়টির ভিপি হওয়ার গৌরব অর্জন করেন। এবারও তিনি নির্বাচিত হয়েছেন। জয়ের অনুভূতি জানতে চাইলে বশির ইবনে জাফর বলেন, আমাকে সাপোর্ট দেয়ার জন্য প্রথমত সব বাংলাদেশি শিক্ষার্থী, মালয়েশিয়ান এবং বিভিন্ন দেশের শিক্ষার্থীসহ দূর থেকে দেশ-বিদেশের সব প্রিয় মানুষদের আন্তরিক শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা জানাচ্ছি।

বশির সমর্থিত অন্য প্রার্থীদের মধ্যে প্রেসিডেন্ট পদে হাফিজ মুহাম্মদ উফাফ, ওয়েলফার ব্যুরো পদে বাংলাদেশি শিক্ষার্থী ফয়সাল সাদিক, সোশাল অ্যান্ড কালচারাল ব্যুরো পদে মালয়েশিয়ান শিক্ষার্থী আমীরা এবং স্পোর্টস অ্যান্ড রিক্রিয়েশনাল ব্যুরো পদে আরেক বাংলাদেশি শিক্ষার্থী সোহানুর রহমান জয়লাভ করেন।

মালয়েশিয়ার প্রধান বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ডাকসুর মতো স্টুডেন্ট রিপ্রেজেন্টিটিভ কাউন্সিল (এসআরসি) নির্বাচনের আয়োজন করা হয় প্রতি বছর। স্থানীয় শিক্ষার্থীদের জন্য প্রেসিডেন্ট পদটি সংরক্ষিত রাখা হয়। বাকি আরও ৮টি পদ নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আয়োজন করে এই এসআরসি নির্বাচন।

২০২১ সেশনের জন্য অনুষ্ঠিত এ নির্বাচনে ভিপি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন বশিরসহ আটজন। বিশ্ববিদ্যালয়টির প্রকৌশল বিভাগে অধ্যয়নরত বশির ইবনে জাফরের বাড়ি কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়ায়। তার বাবা মাওলানা জাফর আহমদ কাসেমী জামালপুর জেলার জামেউল উলুম হাক্কানিয়া দাওরায়ে হাদিস মাদ্রাসার মুতামিম এবং মা গৃহিণী। তাদের বর্তমান নিবাস ময়মনসিংহ শহরে।

কওমি মাদ্রাসাপড়ুয়া এই কোরআনের হাফেজ রাজধানীর দনিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাসের পর স্কলারশিপে মালয়েশিয়ায় পড়াশোনা করতে যান। হাফেজ বশির ইবনে জাফরের এ বিজয়ে মালয়েশিয়া প্রবাসীরা তাকে অভিন্ন্দন জানিয়েছেন।

Check Also

দুই দিন ধরে মৃত মায়ের পাশে শিশু, করোনার ভয়ে কাছে এলো না কেউ

করোনার আতঙ্কে মৃত মায়ের পাশেই দিন দুয়েক ধরে অভুক্ত হয়ে পড়ে রইল ১৮ মাসের শিশু। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *